বাংলাদেশে রাজনীতির চেয়ে লাভজনক ব্যবসা আর নেইঃ রুমিন ফারহানা

বিএনপির সংরক্ষিত নারী আসনের সংসদ সদস্য রুমিন ফারহানা বলেছেন, ‘বাংলাদেশে রাজনীতির চেয়ে লাভজনক ব্যবসা আর নেই। এখানে খালি হাতে এসে হাজার কোটি টাকার মালিক হওয়া যায়।’
শনিবার (১২ অক্টোবর) জাতীয় প্রেস ক্লাবে সুশাসনের জন্য নাগরিক- সুজন আয়োজিত‘ব্যাংক খাত নিয়ে উল্টাপাল্টা পদক্ষেপ বন্ধ করুন : ব্যাংক সংস্কার কমিশন গঠন করুন’ শীর্ষক গোলটেবিল বৈঠকে তিনি এ মন্তব্য করেন।

রুমিন ফারহানা বলেন, সংসদের ৬১ শতাংশ ব্যবসায়ী দেখে অবাক হওয়ার কিছু নেই। কারণ রাজনীতি এখন সবচেয়ে বড় লাভজনক ব্যবসা। বাংলাদেশে রাজনীতির চেয়ে লাভজনক ব্যবসা আর নেই। এখানে খালি হাতে এসে হাজার কোটি টাকার মালিক হওয়া যায়। বিদেশে টাকা পাচার করা যায়। এজন্য মন্ত্রী-এমপি হতে হবে তা-ও নয়। ক্ষমতাসীনদের সঙ্গে থাকলেই হয়। যার বড় উদাহরণ যুবলীগের সম্রাট।

‘বর্তমান সরকার ব্যাংক লুটপাটকারীদের বি&&রুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেয়নি’ দাবি করে এমপি রুমিন ফারহানা বলেন, ‘বেসিক ব্যাংক ভালোভাবে চলছিল। সেটি ধ্বং**স করা হয়েছে। এর পেছনে বারবার ব্যাংকটির সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুল হাই বাচ্চুর কথা উঠে এসেছে। কিন্তু এখন পর্যন্ত সরকার তার বি&&রুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়নি। কারণ বাচ্চু প্রধানমন্ত্রীর কাছের লোক।’

‘এক যুগ্ম সচিব অর্থ মন্ত্রণালয়ের রিপোর্টে বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী ছাড়া তিনি (বাচ্চু) কাউকে পরোয়া করেন না। বিভিন্ন জায়গায় বলে থাকেন, প্রধানমন্ত্রীর কাছের লোক তিনি (বাচ্চু)। সেই আব্দুল হাই বাচ্চুর বি**রুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেয়া হয়নি।’
সাবেক অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিতের সমালোচনা করে রুমিন ফারহানা বলেন, ‘সংসদে দাঁড়িয়ে তিনি (মুহিত) বলেছিলেন, ব্যাংক খাতে পুকুর নয়, সাগর চুরি হচ্ছে। রাজনৈতিক বিবেচনায় ব্যাংক দেয়া হচ্ছে। তারপরও ওই অর্থমন্ত্রী পদে কেন ছিলেন?’

এমপি রুমিন আরও বলেন, ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের পাশাপাশি এ সরকার দেশের শেয়ারবাজারকে পরিকল্পিতভাবে ধ্বং**স করেছে। সাবেক অর্থমন্ত্রী বলেছেন, শেয়ারবাজার হলো ফটকাবাজার। হল-মার্কের চার হাজার কোটি টাকা কিছুই না। এ ধরনের অর্থমন্ত্রী ও রাজনীতিবিদদের সঙ্গে নিয়ে আমরা চলি। তাদের নিয়ে আশাবাদী হওয়ার কিছু দেখি না। যেখানে রাজনীতিবিদ, আমলা, মন্ত্রী, ব্যাংকার, ব্যবসায়ী- সব মিলেমিশে একাকার হয়ে গেছে। তাই সংসদের ৬১ শতাংশ ব্যবসায়ী দেখে অবাক হওয়ার কিছু নেই।

বৈঠকে সুজন সভাপতি এম হাফিজ উদ্দিন খান, সাধারণ সম্পাদক বদিউল আলম মজুমদার, কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সাবেক ডেপুটি গভর্নর ইব্রাহিম খালেদ, অগ্রণী ব্যাংকের সাবেক এমডি আবু নাসের বখতিয়ার, অধ্যাপক আবু সাঈদ প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

Sharing is caring!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *