বিশ্রাম নয়, শ্রীলঙ্কা সফরের সময় পবিত্র হজ্জ্ব পালন করতে যাবেন সাকিব!

বিশ্বকাপ শেষে আজ দেশে ফিরছে বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের অনেকেই৷ তবে দলের সাথে ফিরেননি বিশ্বকাপের সেরা পারফর্মার সাকিব আল হাসান৷ স্ত্রী-সন্তানকে ইউরোপের কয়েকটি দেশ ঘুরে দেখানোর জন্যই সেখানে থেকে যান সাকিব। তবে শোনা যাচ্ছে আগামী ২৬ জুলাই থেকে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে শুরু হওয়া ওয়ানডে সিরিজে ছুটি চেয়েছেন সাকিব৷ প্রথমে ধারণ করা হচ্ছিল বিশ্রামের জন্য ছুটি চেয়েছেন তিনি। কিন্তু এখন শোনা যাচ্ছে পবিত্র হজ্জ্ব পালনে যাওয়ার জন্যেই শ্রীলঙ্কা সফরে ছুটি চেয়েছেন সাকিব। বিদেশি এক গণমাধ্যমকে এমনই এক তথ্য জানিয়েছেন বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীন নান্নু। তার মতে, গত বছরের মতো এবারো হজে যাওয়ার চিন্তা করছেন সাকিব। এ কারণেই বিসিবির কাছে ছুটি চেয়েছেন তিনি। বিদেশি ওই মিডিয়াকে নান্নু বলেন, ‘বিরতিহীনভাবে ক্রিকেট

খেলতে খেলতে সাকিব অনেকটাই ক্লান্ত। সম্ভবত এ জন্যই হয়তো সে বিশ্রামের আবেদন করেছে। আমি যতদূর জানি, সে এবারো হজে যাওয়ার চিন্তা-ভাবনা করছে; কিন্তু আমরা এখনো তার বিশ্রামের বিষয়ে কোনো সিদ্ধান্ত নিইনি।’ আরো পড়ুন: দেশের মানুষের প্রত্যাশা পূরণ করতে পারলাম না: সাকিব বিশ্বকাপ মিশন শেষে দেশে ফেরার ঠিক আগ মুহূর্তে বাংলাদেশ দলের তারকা ক্রিকেটার সাকিব আল হাসান বলেন, আমি ভালো করলাম, কিন্তু দল সেমিফাইনাল খেলতে পারল না। আক্ষেপ হলো আমরা দল হিসেবে খেলতে চেয়েছিলাম, সেটা করতে পারলাম না। বাংলাদেশের মানুষের যে প্রত্যাশা ছিল, ঠিকভাবে সেটা পূরণ করতে পারিনি। দলীয় প্রত্যাশা পূরণ না হলেও ব্যক্তিগতভাবে শতভাগ সফল সাকিব আল হাসান। তার কাছে দল যে প্রত্যাশা করেছিল তিনি তার চেয়েও ঢের বেশি ভালো খেলেছেন। শনিবারের আগে আট ম্যাচে ৬০৬ রান করে চলতি বিশ্বকাপে শীর্ষেই ছিলেন বাংলাদেশ দলের এ অলরাউন্ডার। ব্যাক টু ব্যাক সেঞ্চুরি ও পাঁচটি ফিফটির ইনিংস খেলার পাশাপাশি বল হাতে ১১ উইকেট শিকার করে বিশ্বকে তাক লাগিয়ে দিয়েছেন তিনি। তার ব্যাটে-বলের নৈপুণ্যে সেমিফাইনালের স্বপ্ন দেখেছিল বাংলাদেশ। কিন্তু শেষ দুই ম্যাচে ভারত-পাকিস্তানের বিপক্ষে হেরে

সেমির আগেই বিশ্বকাপ মিশন শেষ করে টাইগাররা। বিশ্বকাপে অসাধারণ পারফর্ম করে তিনটি ম্যাচ সেরার পুরস্কার জেতেন সাকিব। ইংল্যান্ড থেকে দেশে ফেরার আগে শনিবার রাতে বিশ্বকাপে নিজের ব্যক্তিগত পারফরম্যান্স নিয়ে সাকিব বলেন, ব্যক্তিগত পারফরম্যান্সে আমি খুবই খুশি। যে ধরনের ইচ্ছা, মন-মানসিকতা নিয়ে ইংল্যান্ডে এসেছিলাম, সেদিক দিয়ে আমি খুশি, তৃপ্ত। বিশ্বকাপে বাংলাদেশ যদি সেমিফাইনালে যেত তাহলে সাকিবের আরও একাধিক রেকর্ড গড়ার সুযোগ হতো। এনিয়ে সাকিব বলেন, এসব রেকর্ড নিয়ে কখনো আমি চিন্তা করিনি। যে সুযোগ এসেছে আমার কাছে সেটা যথেষ্ট ছিল। রেকর্ডের কথা ভেবে খেলার মানুষ আমি নই।

Add a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *