পাকিস্তানকে ঠেকাতে ইচ্ছে করে বাংলাদেশের কাছে হারবে ভারত

চলতি বিশ্বকাপে এখনও পর্যন্ত সেমিফাইনাল নিশ্চিত হয়েছে কেবলমাত্র অস্ট্রেলিয়ার। শেষ চারের খুব কাছেই অবস্থান করছে নিউজিল্যান্ডও। তাদের প্রয়োজন একটি মাত্র জয়। এছাড়া টুর্নামেন্ট থেকে ছিটকে গেছে আফগানিস্তান ও দক্ষিণ আফ্রিকা।এ চার দলব্যতীত সেমির বাকি দুইটি জায়গার জন্য লড়ছে টুর্নামেন্টের ছয়টি দলই। সবচেয়ে সুবিধাজনক অবস্থানে রয়েছে ৫ ম্যাচে ৯ পয়েন্ট থাকা ভারত। কারণ তাদের বাকি রয়েছে আরও ৪টি ম্যাচ। যেখান থেকে ২টি জিতলেই নিশ্চিতভাবে সেমিফাইনালে চলে যাবে দুইবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়নরা।এদিকে ভারতের সেমি যতোটা নিশ্চিত, ঠিক ততোটা নয় পাকিস্তানের। বরং বলা চলে বাচা-মরার অবস্থায় রয়েছে ১৯৯২ সালের বিশ্বচ্যাম্পিয়নরা। নিজেদের ৭ ম্যাচ শেষে পাকিস্তানের ঝুলিতে রয়েছে ঠিক ৭ পয়েন্ট। বাকি থাকা দুই ম্যাচে একটিতেও হেরে গেলে শেষ হয়ে যাবে তাদের সেমিফাইনাল খেলার সম্ভাবনা।এমতাবস্থায় পাকিস্তানের সেমিতে খেলার টিকিট অনেকটা নির্ভর করছে বাংলাদেশের ফলের ওপরও। কারণ পাকিস্তানের মতোই ৭ ম্যাচে ৭ পয়েন্ট রয়েছে বাংলাদেশের। আর টাইগারদের পরের দুই ম্যাচ যথাক্রমে ভারত ও পাকিস্তানের বিপক্ষে। এ দুই ম্যাচে জিতলে পাকিস্তানে টপকে সেমিতে চলে যেতে পারে বাংলাদেশও।তাই পাকিস্তানকে সেমিতে যাওয়া থেকে ঠেকানোর জন্য, ভারত ইচ্ছে করেই বাংলাদেশের কাছে হেরে যাবে- এমনটাই মনে করছেন পাকিস্তানের সাবেক ক্রিকেটার বাসিত আলি। পাকিস্তানের জার্সি গায়ে ১৯৯৩ থেকে ১৯৯৬ সাল পর্যন্ত ১৯ টেস্ট ও ৫০ ওয়ানডে খেলা বাসিত মনে করেন, তাদেরকে ঠেকানোর জন্য ভারত সম্ভাব্য সবকিছুই করতে পারে।পাকিস্তান টিভি চ্যানেল এয়ারি নিউজের এক অনুষ্ঠানে ভারতের সমালোচনা করে বাসিত বলেন, ‘ভারত এখনও পর্যন্ত মাত্র ৫টি ম্যাচ খেলেছে। তারা কখনোই চাইবে না পাকিস্তান সেমিফাইনাল খেলুক। ভারতের দুই ম্যাচ রয়েছে বাংলাদেশ ও শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে (এ দুই দলও রয়েছে সেমির দৌড়ে)। আফগানিস্তানের বিপক্ষে ভারত কেমন খেলেছে, কীভাবে খেলেছে তা তো সবাই-ই দেখেছি।’এ সময় অনুষ্ঠানের উপস্থাপক বাসিত আলিকে জিজ্ঞেস করেন, ‘তবে কি আপনি বলতে চাচ্ছেন, ভারত ইচ্ছে করে বাংলাদেশ ও শ্রীলঙ্কাকে ম্যাচ ছেড়ে দেবে?’ এমন প্রশ্নের জবাবে সরাসরি কিছু বলেননি বাসিত।তবে বুঝিয়ে দিয়েছেন হয়তো ইচ্ছে করেই ঢিলেমি দিয়ে খেলবে ভারত। তিনি বলেন, ‘মানুষ তো বলবে না যে ভারত ইচ্ছে করে হেরে গিয়েছে। কারণ তারা তো সত্য স্বীকার করতে ভয় পায়। দেখবেন ওরা (ভারত) এমন ম্যাচ খেলবে যে কেউ বুঝতেই পারবো না যে ম্যাচে কী হচ্ছে। আফগানিস্তানের বিপক্ষে ম্যাচে যেমনটা দেখা গিয়েছে…।’

Add a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *